,


বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের ইতিহাস

দেখে নিন বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের ইতিহাস

”আমার সোনার বাংলা” গানটি রচিত হয়েছিলো ১৯০৫সালের বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে। যার ২৫টি লাইন রয়েছে।রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর শিলাইদহ ও শাহজাদপুরের জমিদার থাকার সময় (১৮৮৯-১৯০১) এই গানটি রচনা করেন। এবং ১৯০৫ সালে বঙ্গর্দমন পত্রিকায় গানটি প্রকাশ পায়।

কুষ্টিয়ার বাউল শিল্পী গগন হরকরার একটি গানের সুরের অনুকরনে রবীন্দ্রনাথ নিজেই গানটির সুরারোপ করেন।১৯০৭সালে সর্বপ্রথম এটি গাওয়া হয় বঙ্গভঙ্গ বিরোধী মিছিলে।

১৯৭১ সালের ১লা মার্চ গঠিত হয় স্বাধীন বাংলার কেন্দ্রীয় সংগ্রাম পরিষদ। পরে ৩রা মার্চ পল্টন ময়দানে ঘোষিত ইশতেহারে এই গানকে জাতীয় সংগীত হিসেবে ঘোষণা করা হয়। ১৯৭১সালের ১৭ই এপ্রিল মুজিবনগর অস্থায়ী সরকারের শপথ অনুষ্ঠানে এই গান গাওয়া হয়।

১৯৭০সালে জহির রায়হান “জীবন থেকে নেওয়া” চলচ্চিত্রে এই গানটি ব্যবহার করেন।১৯৭২সালে এই গানটির প্রথম ১০ লাইন বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত হিসেবে গাওয়ার জন্য নির্ধারিত হয়।

২০০৮ সালে বেইজিং অলিম্পিকে ২০৫টি দেশের জাতীয় সংগীতের মধ্যে আমাদের জাতীয় সংগীত তুলনামূলক বিচারে ২য় স্থান দখল করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট দেখুন