Friday, June 1st, 2018


রোজা মাকরূহ হয়ে যায় যে কাজগুলাে করলে

পবিত্র মাহে রমজানের রোজা পালন করা মানুষের জন্য ফরজ এবং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ইবাদাত। কিছু কিছু কাজ রয়েছে যাতে রোজাদারের রোজা মাকরূহ হয়ে যায়। এ সব কাজে রোজাদারকে সতর্ক থাকতে হবে। যে সব কাজে রোজা মাকরূহ হয়ে যায়; তা জানা আবশ্যক। সংক্ষেপে তা তুলে ধরা হলো-
(১) খাবারের স্বাদ গ্রহণ করলে:
প্রয়োজন ছাড়া কোনো খাবারের বা কোনো বস্তুর স্বাদ গ্রহণ করলে বা চিবালে রোজা মাকরূহ হয়ে যাবে। তবে মহিলারা তরকারির লবন বা ঝাল পরখ করার জন্য জিহ্বা দিয়ে চেখে দেখতে পারবে। তরকারির স্বাদ পরীক্ষা করে তা ফেলে দিতে হবে।
(২) থুতু বা তরল লালা গিলে ফেলা:
ইচ্ছাকৃতভাবে মুখের মধ্যে থুতু জমা করে তা গিলে ফেললেও রোজা মাকরূহ হয়ে যাবে।
(৩) স্ত্রীকে আসক্তিসহ চুম্বন:
রোজা অবস্থায় স্ত্রীকে চুম্বন বা আলীঙ্গনের ফলে যদি বীর্জপাত হওয়ার সম্ভাবনা থাকলে; তাহলে এ অবস্থায় স্ত্রীকে চুম্বন করলে বা জড়িয়ে ধরলে রোজা মাকরূহ হয়ে যাবে।
(৪) ঝগড়া-বিবাদ করা:
রোজা অবস্থায় ঝগড়া-ঝাটি করে গাল মন্দ করলে রোজা মাকরূহ হয়ে যাবে। এমনকি রোজা রেখে জীব-জন্তুর সঙ্গে কষ্টদায়ক আচরণ করলেও রোজা মাকরূহ হয়ে যাবে।
(৫) টুথপেস্ট বা মাজন দিয়ে ব্রাশ করা:
রোজা অবস্থায় টুথপেস্ট বা টুথ পাউডার, মাজন বা কয়লা ইত্যাদি দিয়ে দাঁত মাজা মাকরূহ। তবে কোনো কিছু ছাড়া শুধু মিসওয়াক করলে রোজা মাকরূহ হবে না।
(৬) অশ্লীল কাজে নিয়োজিত হওয়া:
রোজা রেখে অশ্লীল সিনেমাসহ অশালীন ছবি দেখা বা যৌন উত্তেজক লেখা পড়লে রোজা মাকরূহ হয়ে যাবে।
(৭) অস্থিরতা দেখানো:
রোজা রেখে হা-হুতাশ করা; ক্রমাগতভাবে অস্থিরতা প্রকাশ করতে থাকলে রোজা মাকরূহ হয়ে যাবে। সুতরাং রোজা অবস্থায় আল্লাহর ভালবাসায় ধৈর্য ধারণ করতে হবে। অস্থিরতা প্রদর্শন করা যাবে না।
(৮) অপবিত্র অবস্থায় দিনযাপন করা:
গোসল ফরজ অবস্থায় রোজা রেখে সকাল পর্যন্ত অপবিত্র তথা নাপাক থাকলে; পবিত্রতা অর্জন না করলেও রোজা মাকরূহ হয়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


আরো খবর দেখুন